আপনি তো নিজেই কথা রাখেননি

 

কেনই বা রাখবে অন্য লোকে কথা ? যখন আপনি নিজেই

দেয়া কথা রাখতে লজ্জাও পান না ? ভুলে গেলেন নাকি ?

তাহলে মনে করিয়ে দিই । ‘কৃত্তিবাস’ পত্রিকার পঞ্চদশ সংকলনে

লিখেছিলেন : “পুরস্কার পায় কারা ? যারা তথাকথিত

জীবনে নিরুদ্বেগ ; যাদের অর্থসম্পদ আর প্রতিভা যথাক্রমে

প্রচুর আছে আর সামান্যতম নেই । এবং যাদের হাত

সবসময়েই অপরের পদধূলি নিয়ে-নিয়ে নোংরা হয়ে থাকে ।

পুরস্কার একমাত্র নেওয়া সম্ভব ঈশ্বর অথবা শয়তানের

হাত থেকে ।”

কী দাঁড়ালো ব্যাপারটা তাহলে ? নিজেই ঈশ্বর আর শয়তানের

ডবল ভূমিকায় নেমে বিলোলেন নোংরা পদধূলি । কাদের বলুন তো ?

সেই সব কাকতাড়ুয়া লোকেদের যারা বউয়ের বিছানায়

কচিখুকিদের ফুসলিয়ে দুপুরে আমোদরস ফ্যালে !

আর আপনার মোহাসেবদল ? ল্যাংপেঙে পৌরকর্মী

উঠতে-বসতে প্রতিষ্ঠানবিরোধিতার বাকতাল্লা ঝেড়ে ঢুকে গেল

‘আজকাল’ পত্রিকায়, তারপর বুদ্ধ ভটচাজের ল্যাঙবোট —

পুরস্কার পাবার ধান্ধায় । অন্যজন তিন বছর প্রেমিকাকে

আশ্বাস দিয়ে দায়িত্ব পাবার ভয়ে পালালো কলকাতা, আর, হ্যাঁ,

চাকরিসহ পুরস্কারও পেলো ।

বুড়ো হয়ে বুঝতে পারি শয়তান বা ঈশ্বর বলে কিছু নেই।

সবই আপনার মতো লোকেদের তামাশা-বাজানো ডুগডুগি

যারা নিজেরা কথা রাখতে ভুলে গিয়ে অন্যদের দোষ খুঁজে পায় ।

unnamed

About Hungryalist Archive

Keep reading and get enlightened
This entry was posted in Malay Roychoudhury and tagged , , . Bookmark the permalink.

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s